Image Not Found!
ঢাকা   ২৬ নভেম্বর ২০২২ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সর্বশেষ সংবাদ

  দেশজুড়ে ওএমএস সুবিধায় সাড়া,স্বল্পমূল্যে চাল-আটা পেয়ে খুশি কার্ডধারীরা (2)        দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি ও বাজার স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার-ময়মনসিংহের বিভাগীয় কমিশনার শফিকুর রেজা বিশ্বাস (94)        সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য ভুল ছিলো,অন্যরকম জয় পেলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন (3)        তারাকান্দায় বায়তুল আমান জামে মসজিদ ও নূরুল উলুম কওমী মাদ্রাসার কমিটি গঠিত (89)        আগামী মাসে সব স্বাভাবিক হবে-পরিকল্পনামন্ত্রী (2)        শিক্ষক বাতায়নে দেশ সেরা অনলাইন পারফর্মার রেহেনা আক্তার ঝর্ণা (94)        ময়মনসিংহে নারীদের জন্য বিশেষ আয়োজন ‘নিহার লাভলী টাইম উইথ তানজিন তিশা’ (94)        বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নপূরণ করাই আমার লক্ষ্য-প্রধানমন্ত্রী (3)        তারাকান্দায় ভূমিহীনদের জন্য তৈরী প্রধানমন্ত্রীর ২৬ হাজার ২ শত ২৯ টি গৃহের উদ্ভোধনী অনুষ্ঠান পালিত (94)        বিদ্যুৎ ব্যবহারে মিতব্যয়ী হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর (2)      
গনভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরনের জন্য জাতিসংঘের চূড়ান্ত সুপারিশ লাভ করা উপলক্ষ্যে প্রেস কনফারেন্সে সংযুক্ত থেকে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলেছি,ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়াও আমাদের দায়িত্ব-প্রধানমন্ত্রী।

আজকের ময়মনসিংহ ডেস্ক:

গনভবন থেকে  ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরনের জন্য জাতিসংঘের চূড়ান্ত সুপারিশ লাভ করা উপলক্ষ্যে প্রেস কনফারেন্সে সংযুক্ত থেকে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

২৭ ফেব্রুয়ারী বিকাল ৪ টার সময় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেন তিনি।

তিনি এ সময় আরও বলেন, জাতির পিতা দেশকে ভালবেসে নিজের জীবনকে উৎসর্গ করে গেছেন।তিনি মাত্র সাড়ে ৩ বছরে যুদ্ধবিদ্ধস্ত দেশটির ধ্বংসস্তুপের উপড় দাড়িয়ে বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশে পরিণত করেছিলেন।আজ মুজিব শতবর্ষে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হবার দারপ্রান্তে দাড়িয়ে,যা জাতির জনকের পথ অনুসরণ না করলে কখনই সম্ভব হতোনা।

এ সময় বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল প্রধানমন্ত্রীর হাতে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশের উত্তরনের জাতিসংঘের সুপারিশপত্র তুলে দেন।গতকাল জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসির সভায় পর্যালোচনা শেষে বাংলাদেশ এই সুপারিশ প্রাপ্ত হয়।

উপস্থিত সাংবাদিকদের সাথে প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রধানমন্ত্রী যে সব বিষয়ে বলেন-

করোনা মোকাবেলায় কোন ম্যাজিক নেই ,সবাই আমাদের পাশে দাড়িয়েছেন,করোনা মোকাবেলায় আমার নির্দেশনা মেনে চলেছেন।এতে কোন ম্যাজিক নেই এটাই আমার দায়িত্ব ও কর্তব্যবোধ।জাতির পিতার সন্তান হিসেবেই আমি বাংলাদেশের উন্নয়নে কাজ করি। বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছে এটাকে আমাদের ধরে রাখতে হবে।কোন চ্যানেল কি বললো এটা বিষয় নয় ,আমরা দেশের উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাব।আপনারা ২০০১ হতে ২০০৭-২০০৮ সালের সময়গুলি দেখেছেন, কতটুকু উন্নয়ন দেখেছেন।দক্ষিনাঞ্চলেতো সাংবাদিকরাই যেতে পারতোনা। নিন্দুকেরা নিন্দা করবেই ,এটাই তাদের কাজ।ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ক্ষেত্রে প্রশ্নোত্তরে তিনি বলেন,ডিজিটাল বাংলাদেশ যখন গড়ে তুলেছি,ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়াও আমাদের দায়িত্ব। আইন তার নিজ গতিতে চলছে ,নিজ গতিতেই চলবে।ডিজিটাল দেশের সুযোগ সুবিধা নিবেন,কেউ যাতে ক্ষতি করতে না পারে তাই ডিজিটাল আইনও মানতে হবে।

প্রশ্নোত্তর পর্বের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে বক্তব্য প্রদান করেন।এসময় তিনি বলেন তাঁর নেতৃত্বে দেশের গ্রামীণ অবকাঠামোতে উন্নয়নের ছোয়া লেগেছে।ইতিমধ্যে গ্রামীণ অবকাঠামোতে গৃহহীনদের জন্য মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে ৮ লক্ষ ৯২ হাজার গৃহহীনকে গৃহ প্রদানের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।১৯৯৬ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৯ লক্ষ ৯৮ হাজার ৩৪৬ টি গৃহহীণ পরিবার ঘর পেয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।তিনি বলেন সার্বিক ক্ষেত্রে সকল সূচকেই এগিয়ে গেছে বাংলাদেশ।আজকের দিনটি বাংলাদেশের জন্য  একটি ঐতিহাসিক দিন।তরুণ জন্মই বাংলাদেশকে এগিয়ে নিবে বক্তব্যে এমনটিই আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।

এসময় অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন,জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কনিস্ট কন্যা শেখ রেহানা,বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক (সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী) ওবায়দুল কাদের।